ইংরেজি সাহিত্যের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

অনেকে আত্মজীবনী লিখে নিজের জীবনের গল্প লিখে রাখার জন্য। আসলে আত্মজীবনী কি শুধু নিজের জীবনের গল্প? আমরা যদি আত্মজীবনীর দিকে খেয়াল করি তাহলে কিন্তু দেখবো বেশিরভাগ সময়ই, বেশি জায়গা দখল করে রাখে অন্য মানুষ, অন্য মানুষের গল্প। আসলে একা মানুষের কি গল্প হতে পারে? অন্যের সাথে সম্পর্কইতো আমাদের জীবনের গল্প সৃষ্টি  করে।

একই কথা কি খাটে না একটি দেশের ইতিহাস লেখার ক্ষেত্রে? একটি দেশের ইতিহাস যখন লেখা হয় তখন কি শুধু ঐ দেশের গল্পই লেখা হয় নাকি এ দেশের সাথে অন্য দেশগুলো কিভাবে যুক্ত, কি বন্ধুত্ব বা শত্রুতার বাধনে আবদ্ধ বা জড়িত ইত্যাদি লেখা থাকে? কোন দেশের সাহিত্যের ইতিহাস কি সময়, রাজনীতি ও অন্যান্য দেশের কাহিনী/গল্প বাদ দিয়ে হতে পারে? আমি যখন আজ সাহিত্য নিয়ে আলাপ করবো আমি কি পারবো দেশটির ইতিহাস, সংস্কৃতি, দর্শন এবং বহিঃবিশ্বের সাথে তার সম্পর্ক কেমন ছিল, কেমন আছে তার  প্রসঙ্গ না  টেনে?

ইংরেজি সাহিত্যে কি এমন কোন একক উপন্যাস কি আছে যা রুশ লেখক লিও টলস্টয়ের ‘ওয়ার এন্ড পিস’ বা ফরাসী লেখক গস্তাভ ফ্লুবার্ট এর ‘মাদাম বোবারি’র মতো বিশ্বজনীন? এই প্রশ্ন বিশ্বসাহিত্যের অনেক সাধারণ পাঠক থেকে শুরু করে এনসাইক্লোপেডিয়া অব ব্রিটানিকাতেও উল্লেখ থাকে।

“It can be argued that no single English novel attain the universality of the Russian writer Leo Tolstoy’s ‘War and Peace’ or the French writer Gustave Flaubert’s ‘Madame Bovary.”

(Entry: English Literature, Encyclopaedia of Britanica, V-18, page-426)

আরেকটা জিনিস মনে রাখতে হবে: এই বিশ শতকের সব সেরা ইংরেজি গদ্য লেখকরা কিন্তু ইংল্যান্ডের মূল ভূমির বাইরের! এ কালের সালমান রাশদী থেকে শুরু করে ভিএস নাইপাল বা হেনরী জেমস থেকে জোসেফ কনরাড কেউই মূল ইংল্যান্ডের নয়।

এরকম বিভিন্ন তথ্য, তত্ত্ব ও বিতর্ক নিয়েই আলোচনা জমবে আগামী শনিবার বিকাল ৪.৩০ টায়। স্থান ডাকসু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। বাংলাদেশ স্টাডি ফোরামের পক্ষ থেকে ৪৫ তম পাবলিক লেকচারে আপনাকে আমন্ত্রণ!

Related Posts

About The Author

Add Comment