দুঃখিনী পালক

শব্দেরা যখন কবিতার হৃৎপিণ্ডে
স্থির পড়ে থাকে…
কালের ফেলে দেয়া কোষ যেন
প্রাণের আলো ওতে জ্বলবেনা আর।।

দিগম্বর স্বপ্ন, বঙ্কিম কাম, লাস্যময়ী হতাশা
ঝরে যায় কবির আঙুলের ফাঁকে, প্রতিনিয়ত।
এসবে একদা ধুকপুক প্রাণ ছিল, ছিল নেশার মৌতাত
শব্দের শরবত, শব্দের লাচ্ছি, শব্দের রুহ আফযা

সেই কবে ফেলে আসা একেটকটা ভরপুর দুপুর
সেই দার্শনিক শালিকটার কৃষ্ণ-নরম বুক
ঝাড়ুর কাঠির চশমা উঠেছিল যার চোখে
সে সেই যে উড়ে গেল এক মেঘলা দুপুরে…

এরা কিংবা এসব আজ নেই, সেই কবে থেকেই নেই
আছে শহরের ধোঁয়া-ওঠা চোয়াল, মাংশল উরু
যার একেকটি পাজরে জমে থাকে কালের তেতো রক্ত
তার গলায় আটকে থাকে দোমড়ানো শালিকের দুঃখিনী পালক।

Related Posts

About The Author

Add Comment