বাংলার হাংরি মুভমেন্ট ও পাশ্চাত্যের ইম্প্রেশনিজম : পর্ব ২

ছবি : ইন্টারনেট

ছবি : ইন্টারনেট

ইম্প্রেশনিস্ট ভার্জিনিয়া উলফের লেখা পড়তে গিয়ে বুঝতে পেলাম,কি এক দুঃসাহসিক লেখায় হাত দিয়েছি! পরক্ষণেই ভয়ে সান্ত্বনার প্রলেপ দিয়েছে এই ইম্প্রেশনিজম ও হাংরি মুভমেন্টওয়ালারা। আগের পর্বেই লিখেছি এ দুয়ের প্রেক্ষাপট সম্পূর্ণ আলাদা থাকলেও ইম্প্রেশনিজম সাহিত্যে যে চরিত্রগত পরিবর্তন সাধন করেছে,তাতে বাংলার হাংরি মুভমেন্টের চরিত্রগত মিল আমি পেয়েছি।

হাংরি মুভমেন্টকে আমাদের আপন বলার কারন অবশ্যই আছে। সেক্ষেত্রে বাংলায় দার্শনিক আন্দোলনগুলো দেখুন,কোনটিই এতো আলোড়ন সৃষ্টি করতে পেরেছে বলে কেউ মনে করেননা। এটি সত্য যে,হাংরি মুভমেন্ট তিন বছরের মাথায় কেঁচে যায় আদালতের খড়গফলে,কিন্তু এর প্রভাব বাংলা সাহিত্যে অদ্যাবধি প্রত্যাঘাত করে চলেছে। প্রচলিত বাংলা সাহিত্যেে রোমান্টিসিজম এক মরুকরণের কাজ করেছে বলেই এঁরা মনে করেন। ভোলা ময়রা,হরু ঠাকুর,কৃষ্ণকান্ত চামার,গেঁজলা গুই যে সত্যি পাতে তোলার মত সাহিত্য রচনা করছেন,এটি হাংরি আন্দোলনকারীরাই প্রথম ঘোষণা করেন। এছাড়া, “সাহিত্য ছেলের হাতের মোয়া নয়” এ জাতীয় আপ্তবাক্যকে ছুঁড়ে ফেলে দেন মলয় রায় চৌধুরীরা।

এখানে আবার বাস্তববাদ চলে আসে অবধারিতভাবেই। মার্কসীয় চিন্তাধারার অনুপ্রবেশ ঘটেছে এভাবেই। ঠিক সেভাবেই ইম্প্রেশনিস্টগণ প্রথম দিকে “চিত্রকলায়” সাধারণ বিষয়গুলোকে প্রাধান্য দিয়েছেন। এঁরা কল্পিত কোন দেব মূর্তির বীরত্ব,বিশেষত্ব নিয়ে ব্রাশ ধরেননি,দেবীর খাঁজ,ভাঁজ ইত্যাদি নিয়ে আগ্রহ ছিলনা,এমনকি রাজরাজড়া নিয়েও কিচ্ছুটি আঁকেননি। বরং সাধারণ ক্ষেতমজুর,আপন প্রেমিকা,জলের তাৎক্ষনিক প্রবাহ ছাড়াও আপন পোট্রেট আপনিই করেছেন। আর এখানেই উন্নাসিকদের আপত্তি। শিল্প! সে কি চাট্টিখানি জিনিশ!! এখানে হালকারস!!!! ধৃষ্টতা কেন শিল্প নিয়ে ইম্প্রেশনিস্টদের? হালকা বিষয়গুলো কেন আসবে এখানে? তাও বাতিল করে সব পেন্টিংস,ঠেকাও ওদের প্রদর্শনী। হ্যাঁ,এভাবেই একের পর প্রত্যাখ্যাত হয়েছে নানা প্রদর্শনী। এমনকি সাধারণ সমঝদাররাও এ দলেই ছিলেন। গুরু অস্কার ক্লদ মনে,পিয়েরে অগুস্ত রেনোয়া,বাযিল,আলফ্রেড সিসলের বহু চিত্রকর্ম বাতিল হয়েছে। বাদ যায়নি ভ্যান গগও! আর হাংরিয়ানদের কপালে মামলা জুটেছিল কলকাতায়। “প্রকাণ্ড ইলেকট্রিক সুতার” কবিতাটি নিয়ে যে কান্ড ঘটেছিল,তা কমবেশী সবাই জানি। তবু মলয় রায় চৌধুরী (সদ্যপ্রয়াত), সমীর রায় চৌ ধুরী,সুনীল,শক্তিদের সেই তিন বছরের ঝড়ে বাংলা সাহিত্য ও চিন্তায় লাভ-ক্ষতির গ্রাফ নিয়ে আগামী পর্বে আবার ফিরছি।….. (চলবে)

বিঃদ্রঃ পোস্টের বক্তব্যের দায় একান্তই আমার

লেখক : এস এম শাহাদাৎ জামান

Related Posts

About The Author

Add Comment