বিশটি বই পড়ার টার্গেট নিয়ে টার্গেট টুয়েন্টি (T-20) স্টাডি ফোরামের!

আজকে ডাকসু ক্যাফেটেরিয়াতে আমাদের সাপ্তাহিক সভায় কয়েকটি জরুরী বিষয়ে কথা হয়েছে এবং সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। স্টাডি ফোরামের নিয়মিত কর্মকাণ্ড সুন্দর ও সুচারুরূপে পরিচালনা করার জন্য যে তিনটি নিয়মিত কর্মসূচির উপর জোর দেওয়া হয়েছে সেগুলো হলো:

১. টার্গেট টুয়েন্টি (T-20): স্টাডি ফোরামের প্রত্যেক সদস্য বিশটি বই পড়ে শেষ করার পরিকল্পনা করতে হবে। এটা আগামী দু’মাসের মধ্যে পড়ে শেষ করতে হবে। এখানে নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী বই পড়ার সাথে সাথে একাডেমিক, নন-একাডেমিক ও স্টাডি ফোরামের বাছাইকৃত বই পড়তে পারবে।

২. নিয়মিত লাইব্রেরি: লাইব্রেরিতে অনেকে একসাথে পড়েন। পড়ার পর লেনদেন করা যায়। এতে চিন্তার সক্ষমতা বাড়ে। একা একা পড়লে অনেক সময় আত্ম অহমিকায় পড়ার সম্ভাবনা থাকে এবং নিজেকে জগতের সবচেয়ে জ্ঞানী লোক ভাবার যথেষ্ঠ কারণ থাকে। অনেকের সাথে পড়লে দেখা যায় আমার মত, আপনার মত অনেক জ্ঞানী গুণী লোক আছে বা থাকতে পারে বা আমার চেয়েও সমঝদার লোক থাকতে পারে। বই পড়ার পর কোন ব্যক্তির যে বুঝাপড়া ডেভলপ করে তা অনেক সময় একপেশে হতে পারে, কারো সাথে সেটা শেয়ার না করলে ‘হামছে বড়া কোন হ্যা’ মনোভাব চলে আসে যেটা পড়ার একটা স্বাভাবিক প্বার্শ প্রতিক্রিয়া। এখন এটা যদি আরেকজন পাঠকের সাথে শেয়ার করা যায়, তার মতের সাথে পরিচিত হওয়া যায় তাহলে স্বাস্থ্যকর লেনদেন হতে পারে, এর মাধ্যমে নিজের বুঝাবুঝি শক্ত করা যেতে পারে।

‘Reading make a full man; conference a ready man; and writing an exact man.’

একা একা পড়লে কনফারেন্স করার সুযোগ হয়না।

৩. ক্যাম্পাস আড্ডা: লাইব্রেরি শেষে আমাদের নিয়মিত আড্ডা চালু থাকবে।

আমরা প্রতিদিন লাইব্রেরি শেষে পঠিত বিষয় নিয়ে নিজেদের মধ্যে ‘ওপেন ডিসকাশন’ করি। সেখানে আমরা প্রত্যেকে প্রত্যেকের পড়া বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করি। এর মজার দিক হচ্ছে আমরা একই সাথে অনেকের সারাদিনের পড়াতে নিজেদের ভাগ বসাতে পারি।

আমরা গান গাই, কবিতা আবৃত্তি করি, কৌতুক করি, গল্প করি, একসাথে চা খাই, নাস্তা করি।

ওপেন ডিসকাশন এর লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হল জ্ঞানরাজ্যের সাথে একটি সামঞ্জস্যপূর্ণ যোগাযোগ ঘটানো, to have a holistic command over knowledge’। পারস্পরিক যোগাযোগ, শেয়ার ও মতামত প্রকাশ,মতৈক্য, মতানৈক্য মতপার্থক্যের মাধ্যমে সত্যের কাছাকাছি পৌছা আমাদের লক্ষ্য। সত্যানুসন্ধানে এটা খেয়াল রাখি যে আমরা যেন গোড়াপন্থী না হয়ে যাই এবং বলে বসি পৃথিবীতে শুধু একটাই সত্য। মূলত সত্য একটা হলেও এর ব্যাখ্যা ভিন্ন এবং এতে পৌছার পথ ভিন্ন এবং এর স্বাদ ব্যক্তিতে ব্যক্তিতে পার্থক্য তৈরি করে। এজন্য আমরা এই ভিন্নতার ব্যাপারে সতর্ক এবং অবগতথাকি এবং থাকতে বলি, এবং সর্বোপরি এই ভিন্নতাকে সম্মান করার চর্চা করি।

আমরা মনে করি, মতপার্থক্য হচ্ছে একটি গোলাপ ফুলের বিভিন্ন পাপড়ির মত। একটা পাপড়ি আলাদা অবস্থায় অসম্পূর্ণ। কিন্তু অনেকগুলো এক সাথে হলে সম্পূর্ণ গোলাপ ফুল হয়ে দাড়ায় এবং গন্ধ ছড়ায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান কাজ জ্ঞানের এই বাগান তৈরি করা। বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থীকে সমস্ত ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দের উর্ধে উঠে নির্মোহ দৃষ্টিতে বস্তুকে পর্যবেক্ষণ করার সক্ষমতা অর্জন করতে হয়। ‘ওপেন ডিসকাশন’ সেশন আমাদেরকে সে সক্ষমতার দিকে ধাবিত করে।

আগামী দিনগুলোতে আমাদের নিয়মিত আড্ডা আরও সুন্দর ও কার্যকর করার লক্ষ্যে আরও কয়েকটি বিষয়ে ফোকাস দেওয়া হবে।

  • A Book in a Week-সপ্তাহে একটি বই
  • আমাদের ক্যাম্পাস আড্ডা সপ্তাহের যেকোন দুদিন ইংরেজিতে পরিচালিত হবে যাতে আমাদের তরুন বন্ধুরা ইংরেজিতে নিজেদেরকে আরও সবল করতে পারে।

 

 

Related Posts

About The Author

One Response

Add Comment