বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোচিং সেন্টার

একটা দেশ বা জাতির উত্থান-পতন মাপার সবচেয়ে বড় সূচক হচ্ছে সে দেশের বিশ্ববিদ্যালয় এবং সেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মান। বলতে দ্বিধা নেই বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা অত্যন্ত ক্রান্তিকাল পার করছে। বিশেষ করে উচ্চশিক্ষার প্রতিষ্ঠানসমূহ যেমন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আমলা, কেরানী বা কর্পোরেট কারখানার শ্রমিক সাপ্লাইয়ের ঠিকাদারি নিয়ে রেখেছে। অন্যদিকে নব্বই দশকের পর থেকে দ্রত গতিতে বাড়তে থাকা প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যেমন অনেক ছাত্র-ছাত্রীকে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সুযোগ করে দিচ্ছে কিন্তু সেগুলোও অনেকক্ষেত্রে জ্ঞান নয় বরং সার্টিফিকেট বিলির অফিসঘর হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। কিন্তু এ অবস্থা বেশিদিন চলতে দেয়া যায় না।
আমাদেরকে বারবার স্মরণ করতে হবে এই শতকে বাংলাদেশ একটি বড় সম্ভাবনার নাম। সম্ভাবনাকে বাস্তবে রূপ দিতে হলে শিক্ষায় জোর দিতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয় এবং উচ্চশিক্ষার সংস্কার এজন্য খুবই জরুরী। আমরা দেশের ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যাকে জনশক্তিতে রূপান্তর করতে হলে সবার জন্য শিক্ষা করা যেমন জরুরী তেমনি শিক্ষাক্ষেত্রে বিশেষ করে উচ্চশিক্ষা যে সমস্যার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে তার সংস্কার জরুরী।
সময়ের স্বাভাবিক ধারাবাহিকতায় আমরা হয়তোবা বস্তুগত সমৃদ্ধি লাভ করতে পারি কিন্তু চলমান উচ্চশিক্ষা চালু থাকলে আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে দাড়াতে পারবো না বা আমাদের অর্থনৈতিক বা বস্তুগত সমৃদ্ধি টেকসই হবে না।
আলাউদ্দীন মোহাম্মদের ‘বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোচিং সেন্টার’ এ সময়ের সাহসী উচ্চারণ। বিশ্ববিদ্যালয় ও উচ্চশিক্ষার চলমান অবস্থাকে তিনি যেমন আঘাত করেছেন তেমনি আবার মমতার প্রলেপ দিয়ে এর সমাধানের বা চিকিৎসার পথও বাতলে দিয়েছেন। বইটি একই সাথে সতর্কবাণী আবার আশা জাগানিয়াও।

লেখক : সাবিদিন ইব্রাহিম

Related Posts

About The Author

Add Comment