মাও সে তুং এর উপর একটি বইয়ের সাথে পরিচয়

আজকে লাইব্রেরিতে পড়তে বসলাম বেশ কয়েকটি বই নিয়ে। লাইব্রেরির দ্বিতীয় তলাতে ইতিহাসের বইয়ের তাকগুলোর সামনে দিয়ে হাঁটা আমার সবচেয়ে প্রিয় কাজের একটি। দীর্ঘ কয়েক সপ্তাহ বিরতির পর আজকে গিয়েছিলাম। প্রথম যে কেতাবটি হাতে নিলাম সেটা হলো Dick Wilson এর সম্পাদনায় ক্যাম্ব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস থেকে প্রকাশিত Mao Tse-Tung in the Scales of History। মাওয়ের মৃত্যুর পরপরই তৎকালীন সময়ের শীর্ষ চীনা বিশেষজ্ঞদের মাও সে তুংয়ের উপর লেখা সেরা প্রবন্ধগুলো নিয়ে এই বইটি।

আর দুটো বই আগেও কয়েকবার নিয়েছি সেগুলো হলো বাদশাহ আকবরের ‘আকবরনামা’ ও ভ্লাদিমির নভোকভের ‘স্পিক, মেমরি’। ‘আকবরনামা’র ইংরেজি অনুবাদ পড়াটা একটি কষ্টকর জার্নি মনে হয়েছে যে কয়বার পড়তে গিয়েছি সে কয়বারই। মনে হয় ফার্সি জানলে মূল ভাষায় পড়তে পারলে হয়তো ধরা যেতো। তিনটি বই পড়ার আগ্রহ থাকলেও লাইব্রেরির সময় ছিল সীমিত। এজন্য মাও সে তুংয়ের উপর বইটাই আগে পড়া শুরু করলাম।

বইটা পড়া শুরু করার সাথে সাথেই এর মধ্যে মঝে গেলাম। সময়ের সেরা বিশ্লেষকরা মাও সে তুং এর জীবন ও কর্মকাণ্ডের বিভিন্ন আলোকের বিশ্লেষণ করাতে আমি মাও সে তুংকে বিভিন্ন আলোতে দেখতে পারলাম বইটির মাধ্যমে। মাও সে তুং কে নিয়ে এক-দু’লাইনে মন্তব্য করার ঝুঁকি নিয়ে সম্পাদক ডিক উইলসন প্রথমেই যে বিষয়টি খোলাসা করেন সেটা এমন-“He was too big a man, acting on too many levels over too great a period of time, with too large a vision and too controversial ideas for any one mind satisfactorily to evaluate, at least so soon.”

আমি সম্পাদকের সাথে পুরো মাত্রায় একমত পোষণ করি।

বইটিতে মাও সে তুংয়ের বৈচিত্র্যময় ও বহুমাত্রিক জীবনের ছাঁপচিত্র উঠে এসেছে। মাও সে তুংয়ের সাথে পরিচিত হতে আগ্রহী পাঠকের কাছে একটি দরকারী বই হতে পারে এ বইটি।

 

শেষ করতে চাই মাওয়ের কবিতার লাইন দিয়ে। উল্লেখ্য মাও সে তুং একজন বড় মানের কবি এবং ভালো সাতারু ছিলেন!

 

“Millenia are too long

Let us dispute about mornings and evenings”

 

বই: Mao Tse-Tung in the Scales of History

Edited by Dick Wilson

Call Number: 923.151MAW (Dhaka University Central Library)

পাঠকের ডায়রী, 14 মার্চ 2016

Related Posts

About The Author

Add Comment